ভোটের আগে মোদীর তোপ! এলপিজি গ্যাসে ভর্তুকি বাড়ল 100 টাকা, এই কাজ না করলে 1 টাকাও পাবেন না।

এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের দাম দফায় দফায় কমেছে আগামী বছরের লোকসভা নির্বাচনের আগে। রান্নার গ্যাসের দাম আগস্টেই এক দফায় কমেছিল। এদিকে অক্টোবরের শুরুতেই উজ্জ্বলা যোজনার (Ujala Yojana) গ্রাহকদের জন্য ১০০ টাকা করে ভর্তুকি বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এরই মাঝে একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলও গ্যাসের দাম কমানো নিয়ে আলাদা আলাদা ঘোষণা করছে। তবে গ্রাহকদের করতে হবে একটি বিশেষ কাজ এই ভর্তুকি পেতে হলে।

এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের ভর্তুকি কত পাবেন?

কেন্দ্রীয় সরকার কয়েকদিন আগেই রাষ্ট্রায়ত্ত জ্বালানি সংস্থাগুলিকে এক নির্দেশিকা পাঠায়। তাতে বলা হয়, ভর্তুকিযোগ্য রান্নার গ্যাসের সব গ্রাহকের আধার যাচাই করতে বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। এদিকে সব ক্ষেত্রে কেন্দ্রের এই নির্দেশিকার বিষয়ে সরাসরি গ্রাহকদের জানানো হয়নি সরকার বা জ্বালানি সংস্থাগুলির তরফ থেকে। এই সংক্রান্ত কোনও জনস্বার্থমূলক প্রচারও হয়নি। এই আবহে ক্রমেই বাড়ছে ধোঁয়াশা এই নির্দেশিকাকে কেন্দ্র করে।

প্রায় এক সপ্তাহ আগে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে বেশ কিছু সিলিন্ডার ডিলারদের এই বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহের বিষয়ে জানায়। এমনটাই জানা গিয়েছে রিপোর্ট সূত্রে। যদিও তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রকের তরফ থেকে ইন্ডিয়ান অয়েল, ভারত পেট্রোলিয়াম ও হিন্দুস্থান পেট্রোলিয়ামকে গত ১৮ অক্টোবরই এই সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়েছিল। তবে গ্রাহকরা এখনও এই বিষয়ে অন্ধকারে। এদিকে রিপোর্ট অনুযায়ী, এই প্রক্রিয়া ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পূর্ণ করতে হবে।

এই নথি গুলি থাকলেই আপনি পারবেন আয়ুষ্মান গোল্ডেন কার্ড থেকে 5 লক্ষ টাকা! জেনে নিন আবেদন পদ্ধতি।

আশঙ্কা করা হচ্ছে, এই আবহে এলপিজি গ্রাহকদের ভোগান্তি পোহাতে হতে পারে। পাশাপাশি, ডিলাররাও চাপে পড়বেন। প্রশ্ন উঠছে, ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আধার সংযুক্ত করা হয়েছে। তার সঙ্গে যুক্ত আছে গ্যাস সংযোগও। এই আবহে ফের কেন বায়োমেট্রিক তথ্য চাওয়া হচ্ছে সরকারের তরফ থেকে? সরকারের তরফ থেকে জানা গিয়েছে, নিয়ম বহির্ভূত ভাবে কোনও এক পরিবারে একাধিক ভর্তুকিযোগ্য গ্যাস সিলিন্ডারের (LPG Gas cylinder) সংযোগ রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখার জন্যই গ্রহণ করা হচ্ছে এই পদক্ষেপ ।

সূত্রের খবর, সবার প্রথমে উজ্জ্বলা যোজনার (Ujala Yojana) আওতায় থাকা গ্রাহকদের বায়োমেট্রিক সংগ্রহ করা হবে। এছাড়া কোনও গ্রাহক চাইলে গ্যাস ডিলার বা ডিস্ট্রিবিউটরের অফিসে গিয়েও জমা করতে পারেন কেওয়াইসি তথ্য ও বায়োমেট্রিক। কিন্তু এই বায়োমেট্রিক তথ্য যাচাইয়ের প্রক্রিয়া চলবে কোথায়? রিপোর্ট অনুযায়ী, দোকানে গিয়ে গ্রাহকেরা বায়োমেট্রিক তথ্য দিতে পারবেন।

এদিকে যখন বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডারের (LPG Gas cylinder) ডেলিভারি করা হয়, তখন ডেলিভারি বয়-এর কাছে যন্ত্র থাকলে সেখানেও তথ্য দেওয়া যাবে। তবে প্রশ্ন উঠছে, সাম্প্রতিককালে বায়োমেট্রিক তথ্য হাতিয়া ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলার প্রবণতা বেড়েছে প্রতারকদের। কিন্তু এখন প্রশ্ন উঠছে এই আবহে সমস্যায় পড়বেন না তো গ্রাহকরা?

পাসপোর্ট করার নতুন নিয়ম, এই ডকুমেন্টস না থাকলে পাসপোর্ট হবে না।

উল্লেখ্য,কয়েক মাস আগেই এইপিএস পদ্ধতিতে প্রতারণার বিষয়টি সামনে এসেছিল। রাতারাতি গ্রাহকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা গায়েব হয়ে যাচ্ছিল। প্রতারণার তদন্তে নেমে জানা যায়, বায়োমেট্রিক তথ্যের অপব্যবহার করেই প্রতারণা করা হচ্ছে। জমির রেজিস্ট্রি থেকে শুরু করে রেশন বা সাধারণ ফোনের সিম তোলার ক্ষেত্রেও বায়োমেট্রিক বাধ্যতামূলক।

Leave a Comment